Policy

The Main principle policy of Bangladesh Korea Association.

বিকে এসোসিয়েশনের মেম্বারদের সাথে আন্তরিকতা বজায় রাখব, পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধা সম্মান প্রদর্শন করব এবং মতামত প্রদানে সমষ্টিগত দিক বিবেচনা করে নীতি নির্ধারন করিব।সভাপতি সভার আদেশ করলে মিটিংয়ে উপস্থিত হয়ে সঠিকভাবে কার্যক্রম পরিচালনায় স্বতঃস্ফুর্তভাবে অংশগ্রহন করব।
বিঃদ্রঃ সংগঠনের নাম –বাংলাদেশ কোরিয়া এসোসিয়েশন Bangladesh Korea Association방글라데시한국협회লগুটির একটি কমেন্ট থাকবে বা স্লোগান থাকবে যেমনঃ
আমার দেশ তোমার দেশ =>>বাংলাদেশ, বাংলাদেশ।
আমার বন্ধু, তোমার বন্ধু =>>বিকে-এসোসিয়েশন, বিকে-এসোসিয়েশন।

কোরিয়া এবং বাংলাদেশেরআইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হব। বাংলাদেশের সাংস্কৃতির বিকাস ঘটিয়ে উভয় দেশের সামাজিক কর্মকান্ডের উন্নয়নে কাজ করিব। এসোসিয়েশনের নীতি মেনে চলব এবং অন্যদেরকেও সঠিক পথে চলার নির্দেশনা দেব। কোন প্রকার অবৈধ কর্মকান্ডে জড়িত থাকব না যাহা মানুষের কল্যান বয়ে আনতে পারে না।

কোন প্রকার অশ্লিলতাকে পশ্রয় দেবনা। নিজেও অশ্লিল কোন কাজে জড়িত থাকব না।ঝগড়া বিবেদ দেখা দিলে তার জন্য কমিউনিটির প্রদানকে অবহিত করে সবার মতামতের ভিত্তিতে তা সমাধানের চেষ্টা করিব। সমাজ কল্যানে পরিপন্থি কাজে জড়িত হলে শাস্তি নিতে বাধ্য হব. (কমিটির স্থায়ী সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে শাস্তি ও জরিমানা নির্ধারন করা হবে)।

বীনা বেতনে এবং স্বেচ্ছায় জনসেবা প্রদান করিব,সবার স্বার্থে নিজেকে আত্বত্যাগ করে যাব এবং মিটিংয়ের দিন বা কনফারেন্সে সঠিক সময়ে উপস্থিত থেকে সেবার কার্যক্রমকে গতিশীল করতে নিজেকে সদা প্রস্তুত রাখিব, এমনকি সবার সাথে সু সম্পর্ক বজায় রেখে উন্নয়ন মুলক কাজে বিশেষ ভূমিকা রাখিব।

দুইবার সংগঠনের মিটিংয়ে অনুপস্থিত থাকলে আমি কমিটি থেকে সরে দাড়াব এবং প্রয়োজনে সভাপতি পদত্যাগে বাধ্য করলে আমি স্বজ্ঞানে পদত্যাগ করিব। সভায় উপস্থিত হতে দেরী হলে ধার্যকৃত জরিমানা প্রদান করিব. (জরিমানার পরিমান কার্যকরী পরিষদ কতৃক নির্ধারিত হবে)।

এসোসিয়েশনের সদস্য হওয়ার পর কেউ যদি আপনাকে অপদস্ত করে বা দুষ্ট লোকের দ্বারা আপনি আক্রান্ত হোন তাহলে সে রেকর্ডপত্র অর্থাত প্রমানসহ এসোসিয়েশনের সে্ক্রেটারিকে বা সভাপতিকে অবহিত করে তাকে বিচারের আওতায় আনতে হবে। এসোসিয়েশনের কেউ অন্যায়কে পশ্রয় দিবেন না, অন্যায়কারীকে নিজ হাতে বিচার না করে এদেশের প্রচলিত আইনে তাকে বিচারে সোপার্দ করে শাস্তি দিতে হবে।

দসভাপতিরনির্দেশ মানতে বাধ্য থাকব, সভাপতি পদত্যাগে বাধ্য করলে তা মেনে নেব, কমিটির স্বার্থে সভাপতির সিদ্ধান্তকে মাথা পেতে গ্রহন করব। এসোসিয়েশনে থাকার ইচ্ছা না থাকলেসদস্য পদ প্রত্যাহারে সভাপতিকে অবগত করে কমপক্ষ্যে দুইমাস সময় হাতে রেখে সভাপতির বরাবরে লিখিত পদত্যাগ পত্র জমা দিয়ে পদত্যাগ করতে হবে।

আমি কখনোই বিকে এসোসিয়েশনে থাকা অবস্থায় রাজনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকব না এবং কোন দলীয় কার্যক্রম করিব না। এসোসিয়েশনের স্বার্থে সর্বদা কাজ করিব কোন প্রকার বিঘ্নতা ঘটলে তা সমাধানের চেষ্টা করব, কোন কারনে দায়ীত্ব পালনে ব্যর্থ হলে আমি স্ব-ইচ্ছায় পদত্যাগ করে চলে যাব।
বিকেএসোসিয়েশনের সদস্য হয়ে অন্য সংগঠনে গিয়ে নিজের পদবীকে বা নিজের কর্মদক্ষতাকে বড় করে উত্থাপন করা সম্পূর্ন নিষিদ্ধ। যদি অন্য সংগঠনের প্রচারে ভাল লাগে বা ঐ সংগঠনের মেম্বার হতে ইচ্ছে করে, তাহলে বিকে এসোসিয়েশন থেকে পদত্যাগ করে করতে হবে। নতুবা বিকেএসোসিয়েশন আইনের মাধ্যমে সে সদস্যকে বিচার করতে পারবে।

সদস্য সংখ্যা হবে ৩১জন, প্রয়োজনে স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্তক্রমে ৫১জনে বর্ধিত করা যাবে। সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনা ও দক্ষতার ভিত্তিতে পরবর্তি পদের জন্য সনাক্ত করা হতে পারে। সভাপতির একক সিদ্ধান্তে কমিটি বাতিল এবং পূনগঠন করতে পারবেন। পরবর্তিতে নতুন কমিটির নির্বাচন সভাপতি ও স্থায়ী কমিটির মতামতের ভিত্তিতে করা সম্ভব হবে।

মেম্বারশীপ ও জনসেবার জন্য নির্ধারিত মাসিক ফি সঠিক সময়ে হিসাব রক্ষকের নিকট জমা দেব। টেকনিক্যাল কাজে পারদর্শি ব্যক্তির কাজে সহায়তা করে তাকেও সম্মান দেখাতে হবে. এবং অপারেটরও তার কাজ যথারীতি পালন করতে চেষ্টা করবেন।

সদস্য ফি তিনমাস বকেয়া থাকলে সদস্যপদ বাতিল হবে. সদস্য পদ বাতিল হলে পরবর্তিতে কোন প্রকার আপত্তি থাকবে না। তিন মাস নির্ধারিত ফি দিতে ব্যর্থ হলে নিজে স্ব-ইচ্ছায় আমি সদস্য পদ প্রত্যাহার করে নিব। সদস্যের ভবিষ্যতে রেজিষ্ট্রেশনের জন্য এসোসিয়েশনের ফাইলিং সিস্টেম চালু থাকবে এবং প্রতিটি মিটিংয়ের কার্যক্রম লিপিবদ্ধ করে রাখা হবে। পাশাপাশি সদস্যদের সঠিক তথ্যের জন্য তার আইডির কপি দাপ্তরিক সম্পাদকের নিকট জমা রাখতে হবে। রেজিঃষ্ট্রেশনের বেলায় যাতে সহজে প্রমানিত হয় যে, সে বা তিনি বিকেএসোসিয়েশনের একজন সদস্য।

বিকে এসোসিয়েশনের মহিলা বিষয়ক সম্পাদীকা মহিলাদের সমস্যা সমাধানে সচেষ্ট হবেন এবং সেক্সোয়ালীভাবে কোন পুরুষের দ্ধারা নির্যাতিত হলে তাকে নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে পাশাপাশি অপরাধীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে এসমাজে নিরাপদে বসবাস করার নিশ্চয়তা প্রদান করতে হবে। সংগঠনের সভাপতি বা স্থায়ী সদস্যদের পরামর্শ নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তকারীকে সাহায্য করতে হবে।

সভাপতি যে কোন সময় এসোসিয়েশন বিলুপ্তের ঘোষনা করতে পারবেন। যদি বিকেএসোসিয়েশনের স্থায়ী সদস্য এবং মেম্বারগন এসোসিয়েশন সুষ্ঠভাবে পরিচালনা করতে ব্যর্থ হন। তখন সভাপতি প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারির অনুমতিক্রমে এসোসিয়েশন বিলুপ্ত করতে পারবেন।বিঃদ্রঃ বাংলাদেশ দূতাবাসের সম্মানিত রাষ্ট্রদূতের উপস্থিতিতে এসোসিয়েশনের নতুন সভাপতি ও সেক্রেটারিসহ স্থায়ী সদস্যদের শপথ পাঠ করালে ভাল হয় যদি সম্মানিত অথিতিবৃন্ধ উপস্থিত থাকেন। প্রোগ্রামের স্বার্থে সবাইকে এসোসিয়েশনের একাউন্ট ব্যবহার করতে হবে। ব্যক্তিগত কারো একাউন্ট বৈধ বলে বিবেচিত হবে না।

বর্তমান স্থায়ী কার্যকরি পরিষদের সদস্য 11 থেকে 15জন সদস্য ছাড়া অন্যান্য সকল স্থায়ী সদস্যদের কাছ থেকে ডিপোজিট নেয়া হবে, বার মাসে 10000*12=12000অন কোন মেম্বার আর্থিকভাবে সম্মৃদ্ধ না হলে দূই মেয়াদে ছয়মাস পর পর নেয়া যেতে পারে, সেই টাকা 6মাস পর বা মেয়াদ শেষে অবশ্যই ফেরত পাবে। যদি সে কোন কারন মাসিক ডুনেশন ফি 10000অন দিতে ব্যর্থ হয় তখন তার ঐ জমাকৃত টাকা থেকে মাসিক ফি কেটে নেয়া হবে। এর উপর দ্বিমত থাকলে এসোসিয়েশনের পক্ষথেকে তাকে সদস্য বা স্থায়ী সদস্য থেকে অব্যাহতি দেয়া হবে। সদস্য পদ বাতিলের ক্ষমতা সভাপতির আছে। অথবা স্থায়ী সদস্যগনের মধ্যে কেউ মিটিংয়ে অনুপস্থিত বা ফি প্রদান করেননি তার ব্যপারে মিটিংয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। বিঃদ্রঃ ডিপোজিটের টাকা দু কিস্তিতেদেয়া যাবে।

ভাষা, সংস্কৃতি, আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে হবে, কোরিয়া এবং বাংলাদেশের প্রচলিত আইন সম্পর্ক অভিজ্ঞতা অর্জন করে উভয় দেশের সেতু বন্ধন হিসাবে এসোসিয়েশনের সদস্যরা বিশেষ ভূমিকা রাখবেন। ইনেক্টিভ পূরাতন সদস্যরা পুনঃ নিয়োগ পাবেন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে।

উপদেষ্টাগন সংগঠনের কর্ম পরিকল্পনা ও অগ্রগতি সম্পর্কে আদেশ ও নির্দেশ প্রদান করিবেন। বিশেষ কোন কারনে সভা বা ফ্যাষ্টিভাল হলে উপদেষ্টাগন উপস্থিত থেকে সভার কার্ষক্রম ও লক্ষ্য সফল হতে সাহায্য করিবেন। দায়ীত্ব হস্তান্তরে সহযোগীতা করবেন।

সভাপতি ও সেক্রেটারি আলোচনার ভিত্তিতে সদস্যদের মধ্য থেকে যোগ্যতার ভিত্তিতে বিষয় ভিত্তিক দায়ীত্ব অর্পন বা পদবী দিয়ে দায়ীত্ব পালনে এবং তা বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগীতা করবেন। কেউ কোন রাজনৈতিক বক্তব্য উপস্থাপন করিব না।বৈধ এসোসিয়েশনের বৈধতা নিয়ে দায়ীত্ব পালনে অগ্রনী ভূমিকা রাখব সে সুবাদে আমাদের ব্যক্তিগত তথ্যও সভাপতির অনুমতি্ক্রমে অফিস সেক্রেটারির নিকট জমা থাকবে। তবে তা কখনো বাহীরে কারো ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করা হবে না।

বিঃদ্রঃ পুলিশের সহযোগীতার জন্য ১১২, গর্ভবর্তী বা যে কোন এ্যাক্সিডেন্টের জন্য ১১৯শে কল করে ইমারজেন্সি দূর্ঘটনা এড়াতে পারেন।ফি শুধু এসোসিয়েশনের রেজিঃপ্রাপ্ত একাউন্টেই জমা রাখা হবে।
উপরোক্ত সমস্ত শর্তাবলী পালনে সদা জাগ্রত থাকিব, সংগঠনের স্বার্থে সম্পূর্ন নিয়ম মেনে চলতে বাধ্য থাকব. সকল শর্ত ও নিয়মকানুন সম্পর্কে অবহিত হয়ে স্বজ্ঞানে সুস্থ মস্তিস্কে বাংলাদেশ কোরিয়া এসোসিয়েশন-বিকেএ এর সদস্য হওয়ার জন্য নিন্মে স্বাক্ষর-সহ নাম ঠিকানা ও আইডি প্রদানকরিলাম।

আমার দেশ তোমার দেশ =>>বাংলাদেশ, বাংলাদেশ।
আমার বন্ধু, তোমার বন্ধু =>>বিকে-এসোসিয়েশন সবার বন্ধু।
Seoul, Dobonggu Dobongro 187gil 44, 10th floor, South Korea.
02-496-7711

© Copyright 2017. All Rights Reserved.